Vomor Kabe Modhu 01

বাংলার প্রচণ্ড প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব শ্রী ব্রজ গোপাল চাটুজ্যে তাঁর বিশাল প্রাসাদোপম বাড়ীতে লর্ড টমাস হেনরীকে আমন্ত্রণ জানালেন। উদ্দ্যেশ্য ছিল নিজের প্রভাবকে আরোও শক্তিশালী করার। তাই যেদিন লর্ড ব্রজবাবুর বাড়ীতে পা দিলেন আনন্দে গদগদ হয়ে তিনি কী করবেন ভেবে পাচ্ছিলেন না।
প্রথমেই উনার বড় স্ত্রী সরিতাদেবীকে ডেকে লর্ড সাহেবের সাথে পরিচয় করিয়ে দিলেন। লর্ড তাঁর সাথে আসা অপর ব্যাক্তির পরিচয় দিলেন – হি ইজ মেহমুদ খাঁ, মাই বেস্ট ফ্রেন্ড।
সরিতাদেবী করজোড়ে নমস্কার করলেন। তারপর ব্রজবাবু তাঁর ছোট স্ত্রী আরতিদেবীকেও ডেকে ওদের সাথে পরিচয় করালেন।

পরিচয়পর্ব শেষ হওয়ার পর তাঁদেরকে অতিথিশালায় বসানো হল। লর্ড ব্রজবাবুকে জানালেন তাঁরা এক সপ্তাহের বেশি থাকতে পারবেন না। ব্রজবাবু ইংলিশ জানেন না তাই মেহমুদ আধাভাঙ্গা হিন্দি ও বাংলামিশ্রিত ভাষায় বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন।
স্নানটান সেরে ভরপেট খাওয়া দাওয়ার পর লর্ড ও মেহমুদ অতিথিশালায় পাশাপাশি দুই বিছানায় শুয়ে গল্প করছিলেন যদিও ইংলিশে কিন্তু তার বাংলা অনুবাদ নিম্নরূপ-
লর্ড – কি ভাবছিস?
মেহমুদ – ব্রজবাবুর স্ত্রীদের কথা।
লর্ড – কী কথা?
মেহমুদ – চেহারাগুলো কি সুন্দর।
লর্ড – সত্যি, অসাধারণ সুন্দরী। আমাদের মেয়েরা শুধু ফর্শাই, কমনীয়তা নাই।
মেহমুদ – বেশভূষা ও অলঙ্কারগুলো দেখে সত্যিই নিজেকে হারিয়ে ফেলেছিলাম।
লর্ড – কি করা যাবে? যার যা ভাগ্য।
মেহমুদ – ভাগ্য আমাদের হাতের মুঠোয় আনতে সময় লাগবে না।
লর্ড – কী ভাবে?
মেহমুদ – বলছি।
মেহমুদ – ব্রজবাবু হচ্ছেন এখানকার জমিদার, একরকম রাজা বললেই চলে। কিন্তু আপনি হচ্ছেন উনারও বড়, মানে রাজার রাজা। উনি নিশ্চয় চাইবেন আপনাকে যেনতেন উপায়ে খুশী রাখতে। আর এখানেই আপনার ভাগ্য বদলের সুযোগ। পরিকল্পনা মতে উনাকে ব্যবহার করতে হবে।
লর্ড – তোমার মাথা তো দারুণ, কি চতুর তুমি। এইজন্যই তোমাকে আমার ভাল লাগে। একটা উপায় বের করতেই হবে।
গল্প করতে করতে ঘুমিয়ে পড়লেন দুজনেই।
ঘুম ভাঙ্গতেই দেখলেন ব্রজবাবু বসে আছেন।
ব্রজবাবু – লর্ড সাহেব ঘুম কেমন হল?
মেহমুদ লর্ডকে বোঝালেন ইংলিশে।
লর্ড – ভালো, কিন্তু আমার বউকে সপ্নে দেখলাম। তাই মনটা খারাপ লাগছে। অনেকদিন হয়ে গেছে তাঁকে পাইনি।
মেহমুদ আধভাঙ্গা বাংলায় বোঝালেন।
ব্রজবাবু – বুঝতে পারছি, পরিবার থেকে দূরে থাকা সত্যিই কষ্টকর।
লর্ড – ছাড়ুন এইসব, আপনার বাচ্চাকাচ্চা কয়জন? দেখালেন না একবার?
এইকথায় মুহূর্তের মধ্যে ব্রজবাবুর হাসিহাসি মুখখানা বদলে গেল। একটা লম্বা দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললেন – আমি নিঃসন্তান।
মেহমুদ লর্ডকে বোঝালেন।
লর্ড ও মেহমুদ আশ্চর্য হয়ে একে অপরের মুখ চাওয়াচাওয়ি করলেন।
ব্রজবাবু বলে চললেন – জীবনে অনেক কষ্ট করে তবে আজকের এই জায়গায় পৌঁছেছি, আমার বাবা একজন কৃষক ছিলেন। আমি একমাত্র সন্তান, আমার যখন বারো বছর বয়েস তখনি মাতৃবিয়োগ হয়। তার তিন বছর অর্থাৎ পনেরো বছর বয়েসে ঘটে পিতৃবিয়োগ। সংসারে তখন আমি একা, মাথায় নাই পরিপক্ক বুদ্ধি। জমিজমা বেদখল হওয়ার ভয়ে সব বিক্রি করে দেই।
তারপর সেই টাকাপয়সা লুকিয়ে ফেলি গোপন জায়গায়। আর পড়াশোনা করতে থাকি। বেশ কিছুদিন পর হঠাৎ তখনকার জমিদার মশায় আমাকে তাঁর বাড়ীতে ডেকে পাঠিয়ে বললেন উনার একজন নায়েবের দরকার, আমি রাজী কিনা।
আমি আনন্দে আটখানা।
শুরু হল আমার সফলতার যাত্রা।
রজবাবু একটু দম নিয়ে আবার শুরু করলেন – প্রায় দশ বছর অত্যন্ত বিশ্বস্ততার সহিত কঠোর পরিশ্রম করে জমিদারের সবচেয়ে প্রিয়পাত্র হয়ে যাই। উনিও আমাকে আমার ন্যায্য পাওনা থেকে অনেক বেশী অর্থ দান করতেন। তাই আমার একার সংসারে শুধু জমাই হচ্ছিল, খরচ প্রায় শূণ্য।
আস্তে আস্তে কম পয়সায় বড় বড় জমি কেনা শুরু করলাম। লোক খাটিয়ে ক্ষেত কৃষি হতো সেই জমিতে।
জমিদারের প্রিয়পাত্র থাকায় প্রভাবশালী হচ্ছিলাম দিন দিন। আস্তে আস্তে অর্থশালীও। নেশা পেয়ে বসে আরো বড়ো হবার।
এই নেশায় বুঁদ হয়ে ভুলেই যাই আমার বয়েস কবেই ত্রিশ পেরিয়ে গেছে।
এইদিকে জমিদার মশায় আমার অবস্থা দেখে হয়তো বা কিছুটা শঙ্কিত হয়ে পড়েন। তিনি সেই ভয়ে উনার একমাত্র মেয়েকে আমার সাথে বিয়ে দিতে উঠে পড়ে লাগলেন।
কিন্তু তাঁর বয়েস তখন মাত্র চৌদ্দ। আমি রাজী হলাম না।
অগত্যা তিনি আমাকে উনার অর্ধেক জমিদারি যৌতুক বা পণ হিসেবে দিবেন বলে ঘোষণা করলেন।
এইবার আর রাজী না হয়ে পারলাম না।
অর্থ লোভে বিয়ে তো করলাম। কিন্তু আরো অর্থ ও প্রতিপত্তির পেছনে ছুটে সন্তান কামনার চিন্তা মাথায় এল আরো দুই তিন বছর পর।
অর্থাৎ আমার যখন পয়ত্রিশ আর সরিতার ষোল।
কিন্তু কিছুতেই সন্তান হল না। অনেক ডাক্তার বৈদ্য কবিরাজ দেখালাম, কিছুতেই কিছু হল না।
মন ভাঙ্গতে শুরু হল। এই দেখে সরিতা নিজে উদ্যোগ নিয়ে সুন্দরী আরতিকে আমার সাথে বিয়ে দিলো।
তখন আমার বয়েস চল্লিশ, সরিতার একুশ আর আরতির ষোল। কিন্ত আবারো ব্যর্থ সন্তান উৎপাদনে। আর আজ অবধি নিঃসন্তান।
বলেই দুইহাতে মুখ ঢেকে বসে রইলেন।
লর্ড ও মেহমুদ একে অপরের মুখের দিকে চেয়ে রইলেন কিছুক্ষণ।
মেহমুদ হঠাৎ বলে উঠলেন – উপরওয়ালা কা খেল নিরালা, ক্যায়া সোঁচে জানে উপরওয়ালা।
দেখিয়ে হামাদের লর্ড সাব ক্যাত্না বড়া ডাক্তার আছেন, আর আপনি চিন্তা করতে আছেন। উনি দেশে এইরকম অনেকের ব্যামার ঠিক করেছেন। আপনি উনাকে দিয়ে এলাজ করাইয়ে।
লর্ড ভাষা কিছু বুঝতে পারেন নি। হাঁ করে শুনছিলেন।
মেহমুদের কথা শেষ হতেই ব্রজবাবু একবারে গিয়ে লর্ডের পায়ে হুমড়ি খেয়ে পড়লেন।
কাঁদো কাঁদো গলায় বললেন – আমায় বাঁচান লর্ড সাহেব। আমায় বাঁচান।
বেচারা লর্ড কিছু না বুঝে ফ্যাল ফ্যাল করে মেহমুদের দিকে তাকালেন। মেহমুদ চোখ টিপলেন।
লর্ড কিছু না বুঝেই বললেন – ওকে।
মেহমুদ এগিয়ে গিয়ে ব্রজবাবুকে দাঁড় করিয়ে বললেন – আপ বৈঁঠিয়ে।
তারপর লর্ডকে বাইরে নিয়ে সব বুঝালেন। শুনে লর্ড রেগে মেহমুদকে বললেন – ওয়াট এ রাবিশ। আমি ডাক্তারির কিচ্ছু জানি না আর তুমি বলে দিলে আমি বড় ডাক্তার।
মেহমুদ হেঁসে বললেন – ইউ ফুল। তুমি বড় ডাক্তার না, বড় ফাকার তো।
মুহূর্তের মধ্যে চমক খেলে গেলো লর্ডের মুখে, বললেন – তোমার জবাব নাই। কিন্তু কিভাবে কি করা যায়?
মেহমুদ – সে তুমি আমার উপর ছেড়ে দাও। শুধু আমি যেভাবে বলি, সেইমতো চলো। প্রথমে এই নামুরাদটাকে একটু ঘেটে ছেড়ে দাও। তারপর শুরু হবে আসল ইলাজ।
ঘরে ঢুকে মেহমুদ ব্রজবাবুকে বললেন – আপনি সব কাপড়া খুলিয়ে। ইলাজ করতে হলে সব দেখে শুনে করতে হয়।
ব্রজবাবু লজ্জিত হয়ে বসে রইলেন।
মেহমুদ আবার বললেন – ইলাজ করতে হলে লাজ মৎ করিয়ে। কাপড়া খুলিয়ে।
ব্রজবাবু বাধ্য ছেলের মতো এক এক করে সব কাপড় খুলে নগ্ন হলেন। দরজা বন্ধ ছিলো।
মেহমুদ এগিয়ে ব্রজবাবুর ভীষণ ছোট লিঙ্গ খানা দেখে অনেক কষ্টে হাঁসি চাপলেন। মাত্র তিন ইঞ্চি হবে, নরম তুলতুলে। হাত দিয়ে চটকাচ্ছেন কিন্তু সেটা শক্ত হচ্ছে না।
ব্রজবাবু আরামে চোখ বুজে ফেললেন।
লর্ড দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে মেহমুদের কাণ্ড কারবার দেখছেন অবাক হয়ে।
ব্রজবাবুর লিঙ্গখানা বের করে মেহমুদ লর্ড সাহেবকে একটা চায়ের পেয়ালা আনতে অনুরোধ করলেন।
সাহেব পেয়ালাখানা পরিষ্কার করে মেহমুদের হাতে দিলেন। রজবাবু তখন চরমে।একটুখানি পরই ব্রজবাবু কাঁপতে কাঁপতে মেহমুদের ধরে রাখা পেয়ালায় তাঁর বীর্য স্খলন করতে শুরু করলেন।
শেষ করার পর মেহমুদ পেয়ালাখানা লর্ড সাহেবের কাছে নিয়ে তাঁকে দেখিয়ে বললেন – বহুৎ পাতলা আছে।
লর্ড দেখে হাসলেন এ যে পরিমাণে অনেক কম ও ভীষণ পাতলা।
লর্ড মেহমুদের উদ্দেশ্যে বললেন – বুঝলাম এখন সন্তান না হবার কারণ।মেহমুদ ব্রজবাবুর পাশে গিয়ে বসলেন। ব্রজবাবু লজ্জায় অধোবদন হয়ে বসে আছেন, বুঝতে পারছেন না কি হচ্ছে। একটু আগে সাবালক হওয়ার পর জীবনে প্রথমবার বাইরের কেউ শুধুই তাঁকে নগ্ন দেখেনি, তাঁর পুরুষাঙ্গ চুষে তাঁকে উত্তেজিত করে তাঁর বীর্যপাতও করিয়ে দিয়েছে। তিনি মুখ উঠাতেও পারছেন না।
মেহমুদ আস্তে করে ব্রজবাবুর কাঁধে হাত রেখে বললেন – আপনি জীবনে বাপ হতে পারবেন না। আপনার দ্বারা সন্তান উৎপাদন সম্ভব নয়। আপনার বীজ ভীষণ পাতলা এবং পরিমাণেও কম। তাই আপনার কখনো সন্তান হবে না।
ব্রজবাবু মুখ উঠিয়ে মেহমুদের দিকে একটা উদাস চাউনি দিয়েই মুখ আবারো নীচে নামিয়ে ফ্যাসফ্যাসে গলায় বললেন – আমি এটাই ধারণা করেছিলাম কিন্তু নিজের পৌরুষত্ব বজায় রাখার জন্য আমি নিজের এইসব ত্রুটি কাউকে কখনো জানতে দেইনি। যখন সরিতা আমাকে আরতিকে বিয়ে করার জন্য পীড়াপিড়ি শুরু করেছিল তাঁকে আমি প্রথমে বাধা দিই। কিন্তু আরতির সৌন্দর্যতা আমাকে মুগ্ধ করে, ভাবি হয়তো আমি পারবো। কিন্তু আবারো ব্যর্থ হই। আর তারপর থেকেই আমি আলাদা ঘরে একা রাত্রি কাটাই। ওরা দুজনেই এইজন্য নিজেরা কম ডাক্তার বৈদ্য দেখায় নি। কিন্তু আজ অবধি কাজ হয়নি আর আমি জানি হবেও না।
লর্ড আগামাথা কিছু না বুঝে বোকার মতো শুনছিলেন।
মেহমুদ কিছুক্ষণ চুপ থেকে আস্তে করে প্রশ্ন করলেন – এখন কি করা উচিত?
ব্রজবাবু হতাশ গলায় বললেন – ভগবান জানেন।
মেহমুদ – খারাপ না পেলে একটা কথা বলবো বলুন।
ব্রজবাবু – না না খারাপ কেন পাবো? আপনি বলুন।
মেহমুদ – আপনি অন্য কাউকে দিয়ে এই কাজটা করিয়ে নিন না। আপনি যখন জানেন দোষটা আপনারই, কেন ওদের মিছামিছি কষ্ট দিচ্ছেন? নারীরা মা হতে না পারলে মারাত্মক কষ্টে ভোগে। পুরুষরা তা বোঝে না।
কটমটিয়ে মেহমুদের দিকে তাকিয়ে ব্রজবাবু বললেন – আপনি লর্ড সাহেবের বন্ধু আর আমার অতিথি না হলে এই কথা বলার উপযুক্ত উত্তর পেয়ে যেতেন।
বলেই গটগটিয়ে অতিথিশালার সেই কক্ষ থেকে বের হয়ে গেলেন।
লর্ড চিন্তিত হয়ে মেহমুদকে জিজ্ঞাসা করলেন – হোয়াট হ্যাপেণ্ড মামুড? (কি হয়েছে মেহমুদ?)
মেহমুদ মুখে বাঁকা হাসি রেখে সব বিস্তারিতভাবে লর্ডকে জানালেন।
লর্ড – এ কি করলে? এতো ভালো সম্পর্কটা শেষ করে দিলে?
মেহমুদ – হ্যাঁ, ভালো সম্পর্ক শেষ। এখন থেকে গুপ্ত সম্পর্ক শুরু হবে।
লর্ড – কি বোঝাতে চাইছো?
মেহমুদ চোখ টিপে বললেন – দেখতে রহো দোস্ত, আগে আগে হোতা হ্যায় ক্যা।
গম্ভীর মুখে ব্রজবাবু বৈঠকখানায় ঢুকলেন। নায়েব গৌর হরি দাস জমিদারবাবুকে ঢুকতে দেখে দাঁড়িয়ে করজোড়ে নমস্কার করে বললেন – একটা দুঃসংবাদ রাজাবাবু (যদিও জমিদার তবুও তাঁর বিশাল সম্পদের কারণে সবাই ব্রজবাবুকে রাজাবাবু বলে ডাকে, এই নায়েবমশায়ই তাঁকে সর্বপ্রথম এই আখ্যা দেন)।
আনমনা হয়ে ব্রজবাবু প্রশ্ন করলেন – কি?
নায়েবমশাই – চৌধুরীবাবু আর নেই।
চৌধুরীবাবু মানে পার্শ্ববর্তী জমিদার যার সাথে ব্রজবাবুর যদিও বৈষয়িক রেষারেষি কিন্তু পারিবারিকভাবে খুব ভালো সম্পর্ক, যে কোনোও উৎসব অনুষ্ঠানে একে অপরকে সপরিবারে নিমন্ত্রণ করেন এবং অত্যাধিক আতিথেয়তার মাধ্যমে নিজের প্রাচুর্যতার নিদর্শন প্রকাশ করেন।
ব্রজবাবু আশ্চর্যান্বিত হয়ে জিজ্ঞেস করলেন – কি বলছেন কি? কিভাবে কি হল?
নায়েবমশাই – গোবিন্দদা নাকি খুন করেছে সম্পত্তির লোভে।
ব্রজবাবু – কি বলছেন? গোবিন্দ তো তাঁর সর্বেসর্বা, ডানহাত। সে কেনো মারবে?
নায়েবমশাই – অর্থই অনর্থের মুল। সে ভেবেছিলো জমিদারকে মেরে তাঁর একমাত্র পুত্রকেও খুন করে সম্পূর্ণ জমিদারি দখল করে নেবে। কিন্তু চৌধুরীবাবুর আর্তচিৎকারে দেহরক্ষীরা গোবিন্দদাকে মাথায় আঘাত করে অচৈতন্য করে বেঁধে ফেলে। তারপর জেরা করতে বাকী সব ষড়যন্ত্র স্বীকার করে বর্তমানে ফাঁসীর জন্য তৈরি হচ্ছে।
ব্রজবাবু – চলুন আজকেই চৌধুরীর ওখানে।
নায়েবমশাই – চলুন।
সরিতাদেবী রান্নাঘরে রাতের খাবার কি হচ্ছে তার তদারকি করছিলেন।
আরতিদেবী একটা বড় সিন্দুকে ব্রজবাবুর জরুরী কিছু দলিল ঢুকিয়ে রাখছিলেন।
এমনসময় ব্রজবাবু হন্তদন্ত হয়ে নিজের শয়নকক্ষে প্রবেশ করলেন। তারপর তাঁর দুই স্ত্রীর নাম ধরে হাঁক দিলেন।
সরিতাদেবী ও আরতিদেবী ছুটে এলেন।
ব্রজবাবু উনাদেরকে সবিস্তারে চৌধুরীবাবুর পরিণতির বর্ণনা জানালেন। শুনে আরতিদেবী তো হাউ হাউ করে কাঁদতে শুরু করলেন। সরিতাদেবীও চোখের জল মুছতে মুছতে ব্রজবাবুকে শুধালেন – এখন কি হবে গো ওদের? কে সামলাবে?
ব্রজবাবু বললেন – আমি আজকেই নায়েবমশাইকে নিয়ে ওদের বাড়ীতে যাবো, তোমরা আমার বিশেষ অতিথিদেরকে একটু খেয়াল রেখো। তাঁদের যেন কোনোওধরণের অসুবিধা না হয়।
আরতিদেবী ধরা ধরা গলায় মিনতি করে বললেন – আমিও যাবো আপনাদের সাথে।
সরিতাদেবীও বললেন – হ্যাঁ হ্যাঁ, ছোটকেও সাথে নিয়ে যান। চৌধুরীবাবু ওকে ছোটবোনের মতো ভীষণ ভালবাসতেন। আর উনার পত্নীকে তো ওই সামলাতে পারবে।
ব্রজবাবু যুক্তিপূর্ণ এই কথাতে রাজী হয়ে বললেন – ঠিক আছে। তুমি তৈরি হও। আমি একটু অতিথিশালা থেকে আসছি।
ব্রজবাবু অতিথিশালার দিকে চললেন।
মেহমুদ ব্রজবাবুকে ঢুকতে দেখে দাঁড়িয়ে গেলেন।
ব্রজবাবু মেহমুদকে সব ঘটনা সবিস্তারে জানালেন। মেহমুদ লর্ডকে সব বুঝিয়ে বললেন।
লর্ড ব্রজবাবুর পিঠে হাত দিয়ে সান্ত্বনা দিলেন। আর বললেন – ইউ মাস্ট গো ( আপনি নিশ্চয় যান )।
ব্রজবাবু বললেন – আমি আমার ছোট স্ত্রী আরতিকে সাথে নিয়ে যাচ্ছি। বড় স্ত্রী সরিতা রয়েছে আপনাদের দেখভাল করার জন্যে। যা কিছুর দরকার হবে ওকে জানাবেন দয়া করে। আমি পরশুদিন আসবো। একটু কষ্ট করে দুইটা দিন কাটাবেন।
মেহমুদ লর্ডকে বুঝিয়ে বললেন।
লর্ড বললেন – আপনি আমাকে লজ্জা দিচ্ছেন কেনো? কোনোও অসুবিধা হবে না আমাদের।
ব্রজবাবু হাতজোড় করে নমস্কার করে ফিরেই আবার ঘুরে দাঁড়ালেন।
ব্রজবাবু মেহমুদের উদ্দেশ্যে বললেন – মেহমুদভাই, আমি আপনার সাথে পূর্ববর্তী ব্যবহারের জন্যে অনুতপ্ত। ক্ষমা করবেন। আমি ক্রুদ্ধ হয়ে পড়েছিলাম। পরে ভেবে দেখলাম আপনি খারাপ তো কিছুই বলেন নি বরঞ্চ আমার ভালোই চেয়েছিলেন। আমি সরিতাকে বলে যাবো তৈরি হয়ে থাকতে। দেখবেন যেন বদনাম না হয়।
বলেই হাতজোড় করে নমস্কার দিয়ে দ্রুত বেরিয়ে গেলেন।
একেই বোধহয় বলে ‘কারো পৌষমাস, কারো সর্বনাশ’।
মেহমুদ আনন্দে লর্ডকে জড়িয়ে ধরলেন।
লর্ড বেচারা কিছু না বুঝে চোখ কুঁচকে মেহমুদের দিকে চেয়ে বললেন – কেউ মারা গেলে এতো আনন্দের কি আছে?
মেহমুদ লর্ডকে সব বুঝিয়ে বললেন।
শুনেই লর্ডের লিঙ্গ কাপড়ের নীচ থেকে তাঁর আনন্দের জানান দিলো নাচতে নাচতে।
আরতি ফর্শা মানে দুধে আলতায়, আর সরিতা অল্প শ্যামলা কিন্তু সেটাই কারু চোখে আসল সৌন্দর্য, দুইজনই ভীষণ সুন্দরী। সরিতা আরতি থেকে লম্বা, মোট পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি যা বঙ্গ ললনাদের মধ্যে কম দেখা যায়। তাঁর কাজলকালো চোখ দেখামাত্র লর্ড বেচারা কাহিল হয়ে পড়েছেন। এখন উনি ভেবে পাচ্ছেন না কি ভাবে কি করবেন। মেহমুদের আনন্দিত মুখের দিকে চেয়ে মনটা খারাপ হয়ে যায়, ভাবতে থাকেন কি ভাবে সরিতাকে অন্য কারোও হাতে তুলে দেবেন।
মেহমুদ ভীষণ চতুর, সে লর্ডের চিন্তিত মুখ দেখেই যা বোঝার বুঝে ফেলেছে। ভীষণ রাগ হল, মনে মনে ভাবলো – শালা আমি খাবার তৈরি করলাম আর আমাকেই খেতে দেবে না কিন্তু সে এই ব্যাক্তিকে হাড়েহাড়ে চেনে। এর বিরুদ্ধাচরণ মানেই মৃত্যু।
যেখানে বিরোধিতা নির্বুদ্ধিতা মেহমুদ উলটো চাল চাললেন।
মেহমুদ বললেন – লর্ড আপনিই সরিতাকে একা সম্ভোগ করুন, আমি তো আরতিকে চাইছিলাম। কিন্তু ওতো ব্রজবাবুর সাথে চলে যাচ্ছে, তাই সরিতাকে বুঝিয়ে বলে এই দুই দিনের জন্যে অন্য কাউকে জোগাড় করে দিন আমার জন্যে।
এই কথায় লর্ডের যেন বুকের উপর থেকে একটা বড় পাথর সরে গেল।
লর্ড বললেন – ঠিক আছে, আগে ও নিজে আমার জন্যে রাজী হোক।
ওইদিকে আরতিদেবী তৈরি হচ্ছেন যাবার জন্যে। আর ব্রজবাবু সরিতাদেবীকে ডেকে নিজের ঘরে নিয়ে গিয়ে বুঝাচ্ছেন কি তাঁর পরিকল্পনা।
সরিতাদেবী মন দিয়ে সব শুনে যাচ্ছেন কিন্তু কিচ্ছু বলছেন না।
তাই দেখে ব্রজবাবু জিজ্ঞেস করলেন – তুমি বুঝতে পারছো তো? দেখো কোনোও হেরফের যেন না হয়। আমার চাইই চাই।
এতক্ষণে সরিতাদেবী মুখ খুললেন – নিজের বিবাহিত স্ত্রীকে অন্য পুরুষের অঙ্কশায়িনী হতে বলছেন নিজের নপুংসতার জন্যে, স্ত্রীকে কেনো এইভাবে শাস্তি দেবেন? আমি পারবো না আপনার এইসব ঘৃণ্য পরিকল্পনায় যোগ দিতে, আপনি বরং ছোটকে বলুন।
জীবনেও ব্রজবাবু সরিতাদেবীর কাছে এই ব্যবহার আশা করেন নি। উনি ভেবেছিলেন তাঁর আদেশই সব। কিন্তু সরিতাদেবীর এই ব্যবহারে তিনি আকাশ থেকে পড়লেন। অপমান ও অভিমানে ঘর থেকে বেড়িয়ে স্নানঘরে ঢুকে পড়লেন।
সরিতাদেবী ভাবতে লাগলেন – এ কি করলাম আমি, উনাকে অপমান করলাম। কিন্তু এই নোংরা প্রস্তাবে সায় দেই কিভাবে? কিন্তু উনি তো ঠিকই বলছেন, সন্তান না হলে বংশ এগোবে কিভাবে? কিন্তু তাই বলে অজানা অচেনা এক পুরুষের সাথে মিলন করবো, তা কি করে সম্ভব? অবশ্য বিয়ের সময় উনিও তো অজানা ছিলেন, কিন্তু অচেনা নয়। কিন্তু ছোট তো উনাকে জানতো না, চেনতোও না। কিন্তু সেটা আলাদা। কি করে নিজেকে স্বামীর বর্তমানে অন্যের হাতে তুলে দেবেন। কিন্তু স্বামী নিজেই যদি স্ত্রীকে এই প্রস্তাব দেয়, স্ত্রীর সেক্ষেত্রে করণীয় কি? স্বামীর বিরুদ্ধাচরন করা, না প্রস্তাব স্বীকার করা? দ্বিতীয়টাই যুক্তিপূর্ণ মনে হচ্ছে। অর্থাৎ স্বামীর প্রস্তাব ও সম্মতিক্রমে অন্য পুরুষের বীর্য নিজের জরায়ুতে নিষিক্ত করে মাতৃত্বের স্বাদ গ্রহণ করা। তবে তাই হবে, তিনি তাই করবেন।
স্নানঘর থেকে বেরিয়ে ব্রজবাবু দেখলেন সরিতাদেবী তাঁর সম্মুখে দাঁড়িয়ে আছেন মাথা নীচু করে।
ব্রজবাবু শুধালেন – কিছু বলবে?
সরিতাদেবী মাথা না উঠিয়েই বললেন – আমি আপনার প্রস্তাবে রাজি। কিন্তু সেটা একবারই যেন হয়।
ব্রজবাবু এগিয়ে এসে তাঁকে আলিঙ্গন করে বললেন – আমি জানতাম আমার কথা তুমি কক্ষনো ফেলবে না। আমি যাওয়ার সময় লর্ড সাহেবকে সব বুঝিয়ে বলবো। তুমি কোনোও চিন্তা কোরো না। শুধু এইকাজে একটু সতর্কতা জরুরী। তুমি এখানে সাবিত্রীকে ব্যবহার করবে, কিন্তু ও যেন কোনওদিন আমার কথা (নপুংসতার কথা) জানতে না পারে। আর আমার শয়নকক্ষ যেহেতু দালানের বাহিরের দিকে তাই গোপনীয়তার জন্যে অন্দরমহলের বদলে ওই কক্ষ ব্যবহার করবে। কাকপক্ষীও যেন টের না পায়।
সরিতাদেবী বসে বসে ভাবছিলেন কিভাবে কি করবেন।
ব্রজবাবুর যাবার সময় হয়ে যাচ্ছে।
সাবিত্রী হচ্ছে সরিতাদেবীর বিবাহের সময় পিত্রালয় থেকে প্রাপ্ত ব্যক্তিগত পরিচারিকা আবার সহচরীও, সে সরিতাদেবীর সেবায় সর্বদা নিযুক্ত থাকে। সরিতাদেবীর ঘুম থেকে উঠার পর শয্যা তোলা থেকে রাতে শয্যা তৈরি করা পর্যন্ত উনার যত ফরমাইস সব পূরণ করাই তাঁর কাজ।
এছাড়া অন্যান্য পরিচারিকারা আছে যাদের কাজ ঘরদোর সাফ করা, রান্না বান্না করা, কাপড় ধোঁয়া, ও বাগান করা ইত্যাদি ইত্যাদি।
যাই হোক সাবিত্রী যেমন সরিতাদেবীর ব্যাক্তিগত পরিচারিকা তেমনি সারদা হচ্ছে আরতিদেবীর ব্যাক্তিগত পরিচারিকা, তাঁদের আরেকটা মুখ্য কর্ম হচ্ছে সাজসজ্জা ও কেশ বিন্যাসে সাহায্য করা।
সাবিত্রী ও সারদা দুজনেই পরিচারিকাদের মধ্যে সর্ব উচ্চ। তাঁদের আদেশেই বাকী পরিচারিকারা কাজ করে। দুর্ভাগ্যক্রমে দুজনেই বাল্যবিধবা ও নিঃসন্তান, তখনকার সামাজিক নানা বাধানিষেধ এবং নানাবিধ প্রতিকুলতার পরিপ্রেক্ষিতে নিজেদের দিন কাটাতে কষ্টকর পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে পরিচারিকার কাজ করার পথ বেছে নেয়। সাবিত্রীর বয়েস এখন ত্রিশের আশপাশ আর সারদার প্রায় বাইশ হবে, কিন্তু ভালো খাওয়াপরা আর শারীরিক পরিশ্রমের ফলে শরীরের বাঁধুনিতে বয়েস আরো কম মনে হয়।
শরীর ঢাকতে এদের পোশাক হচ্ছে কেবলমাত্র একটা সাদা শাড়ী কারণ তখনকার দিনে বিধবাদের কোনো রঙ্গিন বা সেলাই করা কাপড় পড়া নিষিদ্ধ ছিলো। এতে অবশ্য তাঁদের কোনোও অসুবিধা হতো না কারণ অন্দরমহলে ব্রজবাবু ব্যতীত অন্য কোনোও পুরুষের প্রবেশাধিকার ছিলো না। আর ব্রজবাবু অতিশয় ভদ্র ব্যক্তি।
সাবিত্রী আর সারদা দুজনেই খুব বিশ্বাসী ও অত্যন্ত বাধ্য।
ব্রজবাবু অতিথিশালা থেকে লর্ড ও মেহমুদকে নিজের শয়নকক্ষে নিয়ে এলেন আর বললেন – আজ ও কাল আপনারা আমার ঘরে শোবেন। পরশুদিন আমি আসবো। মেহমুদভাই আপনাদের যা দরকার সরিতাকে বলবেন।
বলেই সরিতাদেবীকে ডাক দিলেন – শুনছো? এদিকে একবার আসো তো।
সরিতাদেবী লজ্জায় ঘোমটা টেনে পাশে এসে দাঁড়ালেন।
ব্রজবাবু সরিতাদেবীকে উদ্দেশ্য করে বললেন – লর্ড সাহেব আমার পরম অতিথি উনি যা চাইবেন যেন পেয়ে যান। আর মেহমুদভাই খুব ভালো মানুষ উনিও আমার পরম অতিথি, সাবিত্রীকে দিয়ে বৈঠকখানায় উনার জন্যে ভালো করে একটা শয্যা লাগাতে বলবে।
এইবার লর্ডের উদ্দেশ্যে বললেন – এইবার আমি আসি লর্ড সাহেব, দেরী হয়ে যাচ্ছে।
লর্ড অনুমানে যা বুঝলেন তাই, হাত নেড়ে বললেন – গুড বাই (বিদায়)।
ব্রজবাবু বেড়িয়ে গেলেন ঘর থেকে। সরিতাদেবী, মেহমুদ ও লর্ড সাহেব দালানের বাহির পর্যন্ত এগিয়ে দিলেন। একটা ঘোড়ায় টানা টাঙা গাড়ীতে আরতিদেবী বসেছিলেন যেটাতে ব্রজবাবু চড়লেন। অপরটিতে মালপত্র আর সিপাহীদের নিয়ে নায়েবমশাই আগেই বসেছিলেন। অগত্যা যাত্রা শুরু হোলো।
পুরো জমিদার বাড়ীর দালানে এখন শুধুমাত্র পাঁচটি প্রাণী রয়ে গেল।
সরিতাদেবী, সাবিত্রী, সারদা আর লর্ড ও মেহমুদ।
বাদবাকি চাকর ও পরিচারিকাদের দালানের বাইরে নির্দিষ্ট আলাদা আলাদা ঘর আছে। যেগুলো দালান থেকে বেশ দূরে।
সরিতাদেবীর নির্দেশে সাবিত্রী লর্ড ও মেহমুদের রাত্রের খাবার নিয়ে ব্রজবাবুর শয়নকক্ষে গেলো। তাঁর পোষাক সেই পাতলা সূতীর সাদা শাড়ী, যা দেখে মেহমুদের অশ্বলিঙ্গ উত্থিত হতে শুরু করলো। লর্ড এইসব দেখতে পাচ্ছেন না, উনি তো তখন সরিতাদেবীর চিন্তায় মশগুল।
মেহমুদ একদৃষ্টে সাবিত্রীর বুকের নড়ন চড়ন দেখছেন। আর সাবিত্রী যখন ঘুরে কিছু একটা তুলছিলো তাঁর পাছার খাঁজে শাড়ী আটকে যায়, মেহমুদ তো পারলে ছুটে গিয়ে চেপে ধরেন আর কি। মেহমুদের পেটের খিদে কমে কিন্তু তলপেটের খিদে বাড়তে থাকে। কোনোওরকমে খাওয়ার পর্ব শেষ হয়। সব বাসনপত্র নিয়ে সাবিত্রী পাছা দুলিয়ে ঘর থেকে বেড়িয়ে যায় পেছনে রেখে যায় মেহমুদের অতৃপ্ত দুটি চোখ।
অল্প কিছুক্ষণ পরে সরিতাদেবী উপস্থিত হয়ে অতিথিদের উদ্দেশ্য প্রশ্ন করলেন – পেট পুরে খেয়েছেন তো?
লর্ড বুঝতে না পারলে মেহমুদ বোঝান ইংলিশে।
লর্ড ইংলিশে বললেন – হ্যাঁ, আপনি এতো স্বাদ করে রাঁধলেন তাই একটু বেশীই খেয়েছি।
মেহমুদ সেটা বাংলায় সরিতাদেবীকে বুঝাতে গেলে সরিতাদেবী বললেন – মেহমুদভাই আমি বুঝতে পেরেছি। আমি স্কুলে ইংলিশ পড়েছি। সব বলতে পারি না ইংলিশে, কিছু কিছু পারি কিন্তু সব বুঝতে পারি।
মেহমুদ হাঁ হয়ে রইলেন।
এমনসময় সাবিত্রী এসে সরিতাদেবীকে কিছু বলার আগেই সরিতাদেবী তাঁকে বললেন – সাবি (সাবিত্রীকে এই নামে শুধু সরিতাদেবীই ডাকেন) মেহমুদভাইয়ের শয্যা বৈঠকখানায় করে দাও ভালো মতো।
সরিতাদেবীর আদেশমাত্র সাবিত্রী নিজের কথা আর না বলেই বৈঠকখানা অভিমুখে রওয়ানা হল।
মেহমুদ আর ‘কাবাব ম্যা হাড্ডি’ না হয়ে তাঁর ‘মনপসন্দ চীজের’ দিকে ধাবিত হলেন।
এইদিকে লর্ড আস্তে আস্তে উঠে দরজা বন্ধ করে ফিরে দেখলেন, সেই অপ্সরা তাঁর শয্যায় মুখ নীচু করে বসে আছেন।
তাঁর পাশে গিয়ে বসলেন, হাল্কা করে চিবুক ধরে মুখখানি তুললেন, দেখলেন অপরূপ সেই চক্ষুদুটি মুদে আছে, কাঁপছে যেন অল্প অল্প।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s